ইউটিউবের ভিডিও ডাউনলোডের জন্য অসাধারণ একটি সফটওয়্যার - মুভিয়ার। ডাউনলোড + টিউটোরিয়াল




ইউটিউব থেকে ভিডিও ডাউনলোড করার জন্য আইডিএম একাই যথেষ্ট। চাইলে কোয়ালিটি কন্ট্রোল করেও ডাউনলোড করা সম্ভব। কিন্তু তারপরও, ওভাবে একটা একটা করে ভিডিও ওপেন করে, সেগুলোর হায়েস্ট কোয়ালিটি নির্ধারণ করে দিয়ে তারপর আইডিএম এর ডাউনলোড লিস্টে সেগুলো যোগ করার চাইতে অনেক বেশি নির্ভেজালভাবে যে সফটওয়্যারটি দিয়ে ডাউনলোড করা যায় সেটা হলো “মুভিয়ার”।


সম্পূর্ণ ফ্রি এই অসাধারণ সফটওয়্যারটির সুবিধাগুলো নিম্নরূপ



১. শুধু ভিডিওগুলোর লিংক দিয়ে দিলেই হলো, একটি বা একসাথে হাজারটা লিংক দিতে চাইলেও দেওয়া যাবে। এরপর মুভিয়ার নিজেই একটার পর একটা ভিডিও ডাউনলোড করতে থাকবে। 



২. চাইলে আগে থেকেই কোয়ালিটি সেট করে দেওয়া যাবে, সেটা হতে পারে এইচডি, এইচকউ বা নরমাল। যেটা সিলেক্ট করা থাকবে মুভিয়ার সেই কোয়ালিটিতেই (যদি সেটা এ্যাভেয়লেবল থাকে, না থাকলে তার চেয়ে লো কোয়ালিটিতে নামাবে) নামাতে থাকবে ভিডিওগুলো। 



৩. মুভিয়ার দিয়ে ডাউনলোড করার জন্য ভিডিও পেজ ওপেন করার বা প্লে করার দরকার নাই। জাস্ট লিংকটা পেলেই চলবে।



৪. চাইলে সেটিংস সেট করার মাধ্যমে এমনটাও করা সম্ভব যে মুভিয়ার প্রতিটা ভিডিও ডাউনলোডের আগে ঐ ভিডিওর এ্যাভেয়লেবল কোয়ালিটি এবং করেসপন্ডিং ফাইল সাইজ দেখাবে। যেটা সিলেক্ট করবেন সেটাই ডাউনলোড করবে। তবে এক্ষেত্রে কিন্তু ডাউনলোড করতে দিয়ে আপনি নাকে তেল দিয়ে ঘুমোতে পারবেন না, কারণ প্রতিটা ভিডিও ডাউনলোড শুরু করার আগে কোয়ালিটি কি হবে তা জানতে চাইবে মুভিয়ার।



৫. এটা দিয়ে আপনি কোন ইউটিউব ইউজার/চ্যানেল দ্বারা আপলোড করা সবগুলো ভিডিও দেখতে পারবেন এবং চাইলে একসাথে সবগুলো বা সিলেক্ট করে দেওয়ার মাধ্যমেও নামায় নিতে পারবেন। জাস্ট ঐ ইউজারের আইডিটা লাগবে।



৬. ফাইলের নাম ইউটিউবের ভিডিওর টাইটেলটিই হয়।



৭. অনেক সময় আমরা ইউটিউবের ভিডিও প্লে করে দেখে নেই। পরে আবার ওটা ডাউনলোড করতে ইচ্ছে করতে পারে। এক্ষেত্রে মুভিয়ার যে সুবিধা দিবে তা হলো মুভিয়ার ব্রাউজারগুলোর ক্যাশ মেমোরী থেকে প্লে করা ভিডিও গুলো বের করে আনতে পারবে তাই নতুন করে ডাউনলোড করতে হবে না।



৮. মুভিয়ারকে আপনি চাইলেই একটি ভিডিও কনভার্টার হিসেবেও ব্যাবহার করতে পারবেন।



আর এই সকল সুবিধা ব্যবহার করা খুবই সহজ, যে কেউ পারবেন। তবু এই টিউটোরিয়ালটা লিখছি। আসলে সফটওয়্যারটাই আমার ভীষণ ভালো লাগছে।



টিউটোরিয়ালে আগে মুভিয়ার ডাউনলোড করে নিন। "ক্লিক টু ডাউনলোড মুভিয়ার" 



আগে দেখে নেই, কিভাবে আমরা ইউটউব এর ভিডিও এর লিংক কালেক্ট করবো।



ব্রাউজার মজিলা ফায়ারফক্স : ভিডিও এর উপরে রাইট ক্লিক করে Copy Link Location সিলেক্ট করুন।



ব্রাউজার গুগল ক্রোম: ভিডিও এর উপরে রাইট ক্লিক করে Copy Link Address সিলেক্ট করুন।



যা হোক, যদি মুভিয়ার আপনার কম্পিউটারে চালু অবস্থায় থাকে তাহলে লিংকটি কপি করা মাত্রই মুভিয়ার তা নিজের কাছে নিয়ে নেবে। অতঃপর ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করলেই ভিডিও ডাউনলোড হবে। 



যা হোক, মুভিয়ার যদি চালু থাকে তাহলে মুভিয়ারের একদম ওপরে থাকা টুলবারটি খেয়াল করুন,




এখানে Options টুলটিতে ক্লিক করলে নিচের মতো Options ডায়ালগ বক্স আসবে।


এখানে একেবারে উপরে সবুজ বর্ডারে চিহ্নিত অংশের চেকবক্স (Conferm the incoming folder for each download) এ টিকচিহ্ন দিন যদি আপনি প্রত্যেকটি ভিডিও কোথায় সেভ করবেন তা নির্ধারণ করতে চান। আমার সাজেশন থাকবে টিকচিহ্ন দিয়ে রাখা।

এরপর লাল বর্ডারে চিহ্নিত অংশে ভিডিও এর কোয়ালিটির জন্য ৪ টি অপশন আছে। ওখানে লেখাই আছে দেখুন, “প্রতিটি ভিডিও প্রতিটি কোয়ালিটিতে এ্যাভেয়লেবল থাকে না। যদি কোন ভিডিও নির্ধারণ করা কোয়ালিটিতে না পাওয়া যায় তবে তার নীচের অপশন অনুযায়ী ডাউনলোড হবে।” এখানে আপনি প্রথম অপশনটি সিলেক্ট করতে পারেন যদি আপনার মেগাবাইট-গিগাবাইটের লিমিটেশনস না থাকে, কোয়ালিটিটাই আপনার কাছে বেশি প্রাওরিটির হয়। তাছাড়া ১ম টি সিলেক্ট করা থাকলে যদি সেই কোয়ালিটিতে না পায় তাহলে ২য় কোয়ালিটিতে নিবে, ২য় টি না পেলে ৩য় টিতে নিবে। লাভ যেটা হবে সেটা হলো আপনি অনেক গুলো ভিডিও একসাথে নামাতে দিয়ে আপনার অন্য কাজ করতে পারবেন। ৪র্থ অপশনটি সিলেক্ট করলে প্রতিটা ডাউনলোড শুরু হবার আগে আপনাকে একটি ডায়ালগ বক্সে শো করা হবে যে ঐ ভিডিও কোন কোন কোয়ালিটিতে আছে এবং সেগুলোর ফাইল সাইজ কতো, এরপর আপনি যেটা সিলেক্ট করে দিবেন সেটাতেই নামায় নিবে। এই পদ্ধতি হ্যান্ডি মনে হলেও সমস্যা হলো ডাউনলোড দিয়ে আপনি হাওয়া হয়ে যেতে পারবেন না, কারণ একটি ডাউনলোডের পর নেক্সট ডাউনলোডে গিয়ে ডাউনলোড বন্ধ থাকবে। যা হোক, ৪র্থ অপশন সিলেক্ট থাকলে কি হবে তার একটি নমুনা দেখুন,


আমি উপরের ভিডিওটির লিংক মুভিয়ার কে দিলে এবং ডাউনলোড কোয়ালিটিতে ৪র্থ অপশন সিলেক্ট করে রাখলে ডাউনলোড শুরুর আগে আমাকে নীচের ডায়ালগ বক্স শো করা হবে।



এই ভিডিওটি ২ টি কোয়ালিটিতে আছে, যে কোন একটি আপনি সিলেক্ট করতে পারবেন। যেহেতু কোয়ালিটির সাথে সাথে ফাইল সাইজও দেওয়া আছে তাই সিলেক্ট করাটাও সুবিধার।

যা হোক, ডাউনলোড কোয়ালিটি এর পর যে ৩ টি চেকবক্স আছে সেগুলো আনচেক করেই রাখতে পারেন চাইলে। 

এর পর যেটি আছে নীল কালারের বর্ডারে চিহ্নিত (Simultaneous Downloads) সেটির ভ্যালু ১ করে রাখুন কারণ আমাদের নেটের স্পীড এখনো অনেকটাই স্লো।

এরপরেরটাও ১ করে রাখুন (ছবিতে যদিও ৪ আছে)।

এরপর যেটা আছে কমলা রং এর বর্ডারে চিহ্নিত (Minimize to tray) আনচেক করে দিন যদি আপনি এটা না জেনে থাকেন যে “tray” কি?

এরপরের টাতে টিকচিহ্ন দিতেও পারেন নাও দিতে পারেন।

এইতো, সেটিংস হয়ে গেলো। “ওকে” করে বের হয়ে আসুন।

এবার নীচের ছবির মতো করে টুলবারের দ্বিতীয় সারির শেষের দিকের Convert লেখার পাশের ড্রপডাউন বক্সের ডাউন এ্যারোতে ক্লিক করে একেবারে শেষের No Conversion (Original File) অপশনটি সিলেক্ট করে দিন। (এটি তারা করবেন যারা কনভার্সন ব্যাপারটা সম্মন্ধে জ্ঞাত না)


ব্যাস, কমপ্লিট। মুভিয়ার রেডী এখন ডাউনলোডিং এর জন্য। একটি ভিডিও নামাতে চাইলে মুভিয়ার চালু অবস্থায় ভিডিও এর লিংকটি কপি করুন শুধু, মুভিয়ার লিংকটি নিয়ে নিবে নিজে থেকেই। এরপর জাস্ট মুভিয়ারে গিয়ে টুলবারের দ্বিতীয় সারির ডাউনলোড বাটনটিতে ক্লিক করলেই হবে। নীচের ছবিগুলো দেখুন।

মুভিয়ার দিয়ে একটি ভিডিও নামাবেন যেভাবে:

প্রথমে আমি যেই ভিডিও নামাবো সেটার উপর রাইট ক্লিক করে Copy Link Address সিলেক্ট করেছি।



আমার মুভিয়ার চালুই ছিলো। সেটা নীচের মতো করে কপি করা লিংক নিজে নিজে নিয়েছে (নীল বর্ডারে চিহ্নিত) এবং ডাউনলোড করার জন্য আমি শুধু ডাউনলোড বাটনে (লাল বর্ডারে চিহ্নিত) ক্লিক করেছি।





উপরের ছবিতে দেখুন নীল রং এ চিহ্নিত অংশে মুভিয়ার ভিডিওটির লিংক রাখছে এবং এর পাশের ডাউনলোড বাটনটিতে আপনাকে ক্লিক করতে হবে ডাউনলোড শুরু করার জন্য। ক্লিক করার পর আপনার সেট করা সেটিংস অনুযায়ী ডাউনলোড হয়ে যাবে।


এক সাথে একাধিক ভিডিও ডাউনলোড করা জন্য যা করতে হবে তা হলো নিম্নরূপ:

ধরুন আমি নীচের পেজের ভিডিওগুলো ডাউনলোড করতে চাই,





তাহলে আমাকে যা করতে হবে তা হলো প্রতিটি ভিডিও এর লিংক কপি করতে হবে আর সেগুলোকে একটি জায়গায় সংরক্ষণ করতে হবে। পরে একসাথে মুভিয়ারকে দিতে হবে। মুভিয়ার নিজেই সংরক্ষণ করতে পারবে। আমি সেটাই দেখাবো। আপনারা নিজের সুবিধা অনুযায়ী করবেন। নীচের ছবি অনুসরণ করুন।




খেয়াল করে দেখুন ডাউনলোড বাটনের পাশে একটা ছোট ডাউন এ্যারো আছে (লাল রং এ চিহ্নিত), ওটাতে ক্লিক করুন। ৩ টি অপশন পাবেন, এর মধ্যে দ্বিতীয়টি সিলেক্ট করুন। করলে নীচের মতো একটি ডায়ালগ বক্স আসবে।




এখন আপনার যা কাজ হবে তা হলো একটি করে ভিডিও এর লিংক কপি করুন আর এখানে এসে Ctrl + V চেপে পেস্ট করুন। এক লাইনে একটি লিংক রাখবেন। অর্থাৎ একটি লিংক পেস্ট হলে এন্টার চেপে নীচের লাইনে যেয়ে আরেকটি লিংক পেস্ট করবেন। যেমন,





সবগুলো লিংক পেস্ট করা হয়ে গেলে নীচের ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করে ডাউনলোড শুরু করে দিন।


কোন ইউজার বা চ্যানেলের সকল ভিডিও ডাউনলোড করবেন যেভাবে: 

নীচের ছবির মতো করে কাজ করুন।





হোক উপরের ছবির মতো করে কাজ করলে নীচের ডায়ালগ বক্সটি আসবে।





এখানে সব উপরের টেক্সট বক্সে আপনার পছন্দের কোন চ্যানেল বা ইউজারের নাম বা লিংক দিয়ে পাশের সার্চ বাটনে ক্লিক করলে ঐ চ্যানেল বা ইউজারের সকল ভিডিও নীচে দেখাবে। ভিডিও গুলো চেক করা থাকবে ডাউনলোডিং এর জন্য। আপনি চাইলে নীচের “আনচেক অল” বাটনে ক্লিক করে সব ভিডিও থেকে চেক মার্ক উঠায় দিতে পারেন। এরপর শুধু যেগুলো ডাউনলোড করতে চান সেগুলো চেক করে দিয়ে নীচের ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করবেন, ডাউনলোড শুরু হয়ে যাবে।


এখানে চ্যানেলের নাম হিসেবে ESPN দিয়েছি আমি, রেজাল্ট আসছে নিম্নরুপ





ব্রাউজারের ক্যাশ থেকে ভিডিও নেওয়া: 
কোন ভিডিও যদি প্লে করে থাকেন তো তা ব্রাউজারের ক্যাশ এ থাকে। মুভিয়ারের টুলবারের “ব্রাউজারস ক্যাশ” টুলটিতে ক্লিক করে ওয়েট করুন, যদি কোন ভিডিও আপনি দেখে থাকেন তবে তা শো করবে নীচের মতো।





এখানে দেখুন একটিই ভিডিও রয়েছে যা আমি প্লে করেছিলাম। এটি ডাউনলোড করতে হলে ভিডিও এর থাম্বনেইল এর পাশে দেখুন (খয়েরী রং এ চিহ্নিত) একটি ডাউনলোড আইকন আছে, উহাতে ক্লিক করুন।


---পুরো লেখাটিতে কিছু গ্যাপ রয়ে গেলো। পরে এডিট করে দিবো। তবে আশা করি এটুকুতেই সবাই কাজ চালায় নিতে পারবেন।

Recommended Recommends

Comments

Contact Us